Wednesday , November 30 2022
Home / Tips & Tiricks / সারাদেশে টাকা পাঠাতে পারবেন প্রতি হাজারে মাত্র ৫ টাকা খরচ – Electronic Money Transfer Service [Post Office]

সারাদেশে টাকা পাঠাতে পারবেন প্রতি হাজারে মাত্র ৫ টাকা খরচ – Electronic Money Transfer Service [Post Office]

বন্ধুরা আজকের এই ব্লগে আমি আপনাদেরকে দেখাবো কিভাবে বাংলাদেশের যে কোন জায়গায় টাকা পাঠাতে পারবেন মাত্র ৫ টাকা খরচে। যেখানে বিকাশ এবং রকেটে টাকা পাঠাতে গেলে অনেক বেশি খরচ পড়ে যায় প্রায় ২০ টাকার মতো প্রতি হাজারে খরচ পড়ে, আজকের এই ব্লগে আমি আপনাদেরকে দেখাবো মাত্র ৫ টাকা প্রতি হাজার খরচে বাংলাদেশের যেকোনো জায়গায় কিভাবে টাকা পাঠাবেন। যদিওবা বিকাশ এবং রকেটের থেকে নগদ কিছুটা চার্জ কমেছে ১১ টাকা ৫০ পয়সার মত নগদে এখন ক্যাশ আউট করা যায় তার থেকেও কম এ আমি আপনাদেরকে দেখাবো মাত্র ৫ টাকা খরচে প্রতি হাজারে বাংলাদেশের যেকোনো জায়গায় টাকা উঠাতে পারবেন, পাঠাতে পারবেন, একদম সহজ একটা নিয়মে এ বিষয়টা সম্পর্কে আমি আপনাদেরকে আজকের এই ব্লগে একদমই বিস্তারিত ক্লিয়ার করে দিবো। বিভিন্ন প্রয়োজনে সারা দেশে আমাদের টাকা টান্সফার করা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় টাকা পাঠানোর প্রয়োজন পড়ে থাকে সেটা ব্যবসায় ক্ষেত্রে হোক অথবা পার্সোনাল যেকোন ক্ষেত্রে এখন থেকে আপনাকে এত খরচে টাকা পাঠানো লাগবে না। মাত্র পাঁচ টাকা খরচে বাংলাদেশের যেকোন জায়গায় টাকা পাঠাতে পারবেন তো বেশি কথা না বলে চলুন সরাসরি মূল কথায় চলে যাই।

আমি আজকে আপনাদের সাথে যে সিস্টেম টা শেয়ার করব এটা হল ইলেকট্রনিক মানি অর্ডার। ডাক বিভাগ অর্থাৎ পোস্ট অফিসের মাধ্যমে টাকা লেনদেন এখন থেকে আপনি পোস্ট অফিসের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে পারবেন প্রতি হাজারে মাত্র ৫ টাকা খরচে এ বিষয়টা সম্পর্কে আমি আপনাদেরকে একদমই বিস্তারিত নিচে ক্লিয়ার করে দিচ্ছি,, ধরুন আপনি আপনার বাবার কাছে টাকা পাঠাবেন এখন আপনার নিকটস্থ যে ডাক বিভাগ বা পোস্ট অফিস রয়েছে আপনি সরাসরি পোস্ট অফিসে চলে যাবেন পোস্ট অফিসে যাওয়ার পরে পোস্ট অফিসের যে কর্মকর্তা রয়েছে তাদেরকে বলবেন যে আপনি ইলেকট্রনিক মানি অর্ডারের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে চাচ্ছেন আপনার বাবার কাছে এরপর উনারা আপনাকে একটা ফ্রম দিবে, ছোট্টো একটা ফরম আপনার পূরণ করতে হবে, ফরম পূরণ করার পরে আপনি উনাদের কাছে টাকা দিয়ে দিবেন, যত টাকা আপনি পাঠাতে চাচ্ছেন, সেই টাকাটা আপনি দিয়ে দিবেন প্রতি হাজারে ৫ টাকা খরচ সহ, দিয়ে দেওয়ার পরে ওখানে যে নাম্বারটা আপনি দিয়েছেন ওই নাম্বারে আপনার একটা মেসেজ আসবে এবং মেসেজ এর ভিতর আপনার গোপন একটা পিনকোড থাকবে যখন আপনার মোবাইলে এই মেসেজটা চলে আসবে তখন আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার টাকাটা চলে গিয়েছে।

আর যেহেতু এই পুরা বিষয়টা অনলাইনে নিয়ন্ত্রণ হয় সেহেতু মুহূর্তের ভিতর আপনার টাকাটা এক পোস্ট অফিস থেকে অন্য পোস্ট অফিসে চলে যাবে অর্থাৎ আপনি আপনার বাবার যে ঠিকানা বা যে পোস্ট অফিসে টাকা পাঠাচ্ছেন সেই পোস্ট অফিসে মুহূর্তের ভিতর টাকা চলে যাবে এবং আপনার মোবাইলে মেসেজ চলে আসবে এখন কথা হলো আপনার বাবা টাকাটা কিভাবে উঠাবে আপনি যার কাছে টাকা পাঠিয়েছেন সে কিভাবে পোস্ট অফিস থেকে টাকা নিবে? তাকে টাকা নিতে হলে অবশ্যই নিকটস্থ পোস্ট অফিসে যেতে হবে যে পোস্ট অফিসের ঠিকানা আপনি সাবমিট করেছেন এই পোস্ট অফিসে যাওয়ার পরে আপনার মোবাইলে যে মেসেজটা এসেছে ওই মেসেজের ভিতর যে গোপন পিন কোড টা রয়েছে এই পিন কোড টা আপনি যার কাছে টাকা পাঠিয়েছেন তাকে দিবেন। ওই পিন কোড এর মাধ্যমে তার পোস্ট অফিসে গিয়ে সরাসরি টাকাগুলো কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়া উঠিয়ে নিয়ে আসতে পারবে।

এখানে পিন কোড অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ আপনার এই পিন কোড টা যদি অন্য কেউ জেনে যায় তাহলে ঐ পোস্ট অফিস থেকে যে কেউ কিন্তু টাকাগুলো উঠিয়ে নিতে পারবে। তাই পিন কোড টা অবশ্যই আপনি যার কাছে টাকা পাঠাচ্ছেন তাকে ছাড়া অন্য কোথাও অন্য কারো কাছে শেয়ার করবেন না। যখন পোস্ট অফিসে গিয়ে আপনার বাবা বলবে আমার ছেলে টাকা পাঠিয়েছে এই পিন কোড তখন আপনার বাবাকে তারা টাকাগুলো দিয়ে দিবে। এবার কথা হল এখানে খরচ টা আসলে কেমন আসবে? এখানে খরচ প্রতি হাজারে ৫ টাকা তবে প্রথম ১০০০ এ আপনার খরচ পড়বে ১০ টাকা। এবং ২০০০ টাকাও যদি পাঠাতে চান সেক্ষেত্রে আপনার খরচ পড়বে ১০ টাকা, এরপর ৩০০০ টাকায় ১৫ টাকা, ৪০০০ টাকায় ২০ টাকা, ৫০০০ টাকায় ২৫ টাকা, এভাবে প্রতি হাজারে ৫ টাকা করে বৃদ্ধি পাবে।

Check Also

Rules for using the WhatsApp Call Link feature

Rules for using the WhatsApp Call Link feature WhatsApp is one of the world’s most …