Tuesday , September 27 2022
Home / Motor Bike / বাইক ও গাড়ি চকচক রাখার উপায় | Motorcycle Ceramic Coating

বাইক ও গাড়ি চকচক রাখার উপায় | Motorcycle Ceramic Coating

সবাই চায় শখের মোটরবাইক ও গাড়ি যেন সব সময় নতুনের মতো চকচক করে। এ জন্য ইঞ্জিনের যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি নিয়মিত ধোয়ামোছাও করেন তাঁরা। কিন্তু যতই যত্ন নেওয়া হোক না কেন, ধুলাবালুর এ শহরে পথ চললেই কমতে থাকে মোটরবাইক ও গাড়ির উজ্জ্বলতা। এ সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে সিরামিকের আস্তর (কোটিং)। তরল রাসায়নিকটি (তরল পলিমার) শুকনা কাপড়ে মেখে মোটরবাইক ও গাড়ির ওপর লাগালেই একধরনের স্বচ্ছ আবরণ তৈরি করে। ফলে রং থাকে উজ্জ্বল এবং নতুনের মতো চকচকে।

শৌখিন মোটরবাইক ও গাড়িচালকদের কাছে সিরামিক কোটিংয়ের জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি। বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে। চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এরই মধ্যে গড়ে উঠেছে বেশ কিছু দোকান, যারা মোটরবাইক ও গাড়িতে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ভালো মানের সিরামিক কোটিং দিয়ে থাকে।

প্রয়োজন আছে, না নেই

মোটরবাইক ও গাড়ি তৈরির সময়ই হার্ডনার পেইন্ট ব্যবহার করে একধরনের স্বচ্ছ প্রলেপ দিয়ে দেয় নির্মাতারা। ক্লিয়ার কোটিং নামে পরিচিত এ প্রলেপের কারণে রং উজ্জ্বল দেখায়। তবে ক্লিয়ার কোটিং আর সিরামিক কোটিং এক জিনিস নয়। সিরামিক কোটিংয়ের কার্যকারিতা সাধারণত ক্লিয়ার কোটিংয়ের চেয়ে অনেক বেশি।

সিরামিক কোটিং দেওয়া থাকলে গাড়ি খুব সহজে পরিষ্কার করা যায়। কারণ, কোটিং থাকার ফলে ময়লা বা বৃষ্টির পানি জমতে পারে না। এমনকি ঘষা লাগলেও সহজে দাগ পড়ে না। শুকনা কাপড় দিয়ে সহজেই ধুলাবালু পরিষ্কার করা যায়।

ব্যবহারের আগে

মোটরবাইক ও গাড়িতে সিরামিক কোটিং ব্যবহারের পদ্ধতি একই। প্রথমে পানি ও শ্যাম্পু দিয়ে ভালো করে (হাইপ্রেশার ওয়াশ) মোটরবাইক ও গাড়ি ধুতে হবে। প্রয়োজনে পলিশের মাধ্যমে রঙের ওপরের থাকা সূক্ষ্ম দাগ দূর করে উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে হবে, যা পেইন্ট কারেকশন নামে বেশি পরিচিত। এরপর মোটরবাইক ও গাড়ি আবারও পরিষ্কার করে শুকনা কাপড়ে সিরামিক কোটিং মেখে ধীরে ধীরে রঙের ওপর দিতে হবে। সিরামিক কোটিং ধাতব বা প্লাস্টিক যেকোনো জায়গায় দেওয়া যায়। ভালো মানের সিরামিক কোটিং ব্যবহার করলে মোটরবাইক ও গাড়ির রং প্রায় দুই বছর পর্যন্ত উজ্জ্বল থাকে।

মানতে হবে নিয়ম

অনেকেই মনে করেন, সিরামিক কোটিং ব্যবহার করলে আর কোনো চিন্তা নেই। বিষয়টি মোটেও তা নয়, রক্ষণাবেক্ষণের জন্য অবশ্যই কিছু নিয়ম মানতে হবে। যেমন কোটিং করার ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত মোটরবাইক ও গাড়িতে পানি লাগানো যাবে না। এ ছাড়া যত দিন কোটিং থাকবে, তত দিন গাড়ি ধোয়ার সময় ডিটারজেন্টের বদলে শুধু শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে।

খরচ হবে কত

সিরামিক কোটিংয়ে মান ও যানবাহনের আকারভেদে খরচ কমবেশি হয়ে থাকে। মোটরবাইকে সিরামিক কোটিং দিতে সাধারণত তিন–চার হাজার এবং গাড়িতে সাত–আট হাজার টাকা খরচ হবে।

Check Also

সবচেয়ে সস্তা মোটরসাইকেল নিয়ে আসছে রয়্যাল এনফিল্ড!

২০২২ সালে, রয়্যাল এনফিল্ড বিভিন্ন স্টাইলের মোটরসাইকেল লঞ্চ করতে চলেছে। সংস্থাটি আগামী বছর ভারতে ৪ …