Mar 26, 2020
26 Views
Comments Off on আপনি কি অনলাইন থেকে ফ্রিতে ইনকাম করতে চান ?? তাহলে পোস্ট টি আপনার জন্য।

আপনি কি অনলাইন থেকে ফ্রিতে ইনকাম করতে চান ?? তাহলে পোস্ট টি আপনার জন্য।

Written by

আপনি কি অনলাইনে আয় রোজগারের উপায় খুঁজছেন ? যদি উত্তর হ্যা বোধক হয় তবে আমার এই লিখাটি আপনার কাজে লাগবে। মূলত বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে আয় রোজগারের উপায়গুলো সহজ ও সংক্ষিপ্ত আকারে দেখানই আমার এই পোস্টের মূল উদ্দ্যেশ্য । বাংলাদেশ থেকে অনলাইন আয় রোজগারের উপায়গুলো আমি একে একে বিষয় ভিত্তিক সাজিয়েছি যা একে একে প্রকাশ করা হবে বিবিসি ফ্লাই ওয়েবসাইটে মাধ্যমে। এবার দেখা যাক বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে আয় রোজগারের উপায় সমূহ কি কিঃ

আর্টিকেল লিখে আয় / অর্থ উপার্জনঃ

আর্টিকেল লিখে অনলাইনে আয় করার উপায় টি এখন বেশ জনপ্রিয়। বিবিসি ফ্লাই ওয়েবসাইট সহ  ইন্টারনেটে এমন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে পাঠকগন বিভিন্ন আর্টিকেল লিখে অনলাইনে আয় করতে পারেন। এখানে পাঠক বিভিন্ন বিষয় পড়ার পাশাপাশি লিখালিখি করেও সেই সাইটটাকে আরো তথ্যবহুল করার সুবিধা পেয়ে থাকেন । আবার এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যারা লেখকদের লিখা অনুযায়ী সম্মানি দিয়ে থাকেন, আবার কেউ কেউ লেখকদের সাথে মুনাফা ভাগ করে নেয়। আপনি সেই-সকল সাইটে বিভিন্ন আর্টিকেল লিখতে পারেন আর আপনার লিখা যতো বেশি পাঠক পড়বে, আপনি ততো বেশি টাকা পাবেন। তবে এর জন্য আপনার ইংরাজী ভাষার উপরে চমৎকার জ্ঞান ও আর্টিকেল রাইটিং অভিজ্ঞতা থাকতে হবে, কারন আমার জানা মতে এক মাত্র বিবিসি ফ্লাই বাংলা ভাষাতে আর্টিকেল লিখে আয় / অর্থ উপার্জন সুযোগ দিচ্ছে, বাকি সকল ওয়েবসাইট যারা আর্টিকেল লিখে আয় / অর্থ উপার্জন সুযোগ দিচ্ছে তা সব ইংরাজী ভাষাতে।

প্রশ্ন আসতে পারে তারা কেন আপনাকে টাকা দিবে ? আসলে এটা এমন যে আপনি যখন কোন পোস্ট বা আর্টিকেল তাদের সাইতে জমা দিবেন বা পাব্লিশ করবেন তখন ঐ পোস্ট/আর্টিকেলের বদৌলতে ঐ সাইটের একটি উপার্জন হবে, হতে পারে এডসেন্সের মাধ্যমে বা অন্য কোন বিজ্ঞাপ্নের মাধ্যমে । আর যেভাবেই হোক না কেন আপনার আর্টিকেলের জন্য যা আয় হবে তার নিদিস্ট একটা অংশ ওরা আপনাকে দিবে। বেশ কিছু সাইট আছে বেশ জনপ্রিয় তার মাঝে “পে-পার পোস্ট”, হাব-পেজ, ই-হাউ বা “লাউডলাঞ্চ” অন্যতম ।

আর্টিকেল লিখে অর্থ উপার্জনের জন্য যোগ্যতা

যোগ্যতা অভিজ্ঞতা ছাড়া যেমন কোন কিছু হয় না তেমনে আর্টিকেল লিখে অনলাইনে আয় করতে চাইলে বেশ কিছু বিষয় মাথায় রাখা দরকার। যথাঃ

  • আপনাকে ভাল ইংলিশ জানতে হবে ।
  • পোস্ট অবশ্যই ইউনিক হতে হবে। নো কপি-পেস্ট ।
  • পোস্ট কোয়ালিটি অনেক হাই হতে হবে।
  • রিসেন্ট বিষয় গুলি নিয়ে লিখলে বেশি লাভবান হওয়া যায়
  • টেকনিক্যাল আর্টিকেল লিখতে হলে গোজামিল বা ভূল তথ্য হথাকা মোটেও কাম্য নয় ।
  • আপনি সেই টপিক নিয়ে লিখতে চেস্টা করুন যেটা আপনি ভাল বুঝেন ।

 

এক্ষেত্রে আপনার নিজের কোন ওয়েবসাইট বা ব্লগ থাকার কোন দরকার নাই. তা ছাড়া আপনি আপনার নিজের একটা ব্লগ সাইট খুলে সেখানেও বিভিন্ন টপিকের উপরে আর্টিকেল লিখতে পারেন । এক্ষেত্রে প্রথম দিকে খুব একটা ফীডব্যাক পাবেন না কিন্তু একাধারে চেস্টা করে গেলে ২-১ বছরে মাঝেই আপনার নিজের সাইট টাই আপনার বেশ ভাল মানের একটা আয়ের উৎস হতে পারে । ধৈর্য্য নিয়ে চলতে পারলে সাফল্য আপনার হাতে আসবেই।

ব্লগ থেকে আয়ঃ

আপনি ছবি উঠাতে ভালবাসেন কিন্তু ততটা দক্ষ নন তাই হয়ত ভাবছেন যে ছবি তুলে আয় আপনার পক্ষে সম্ভব না। ”না” চাইলে আপনিও ছবি তুলে আয় করতে পারবেন । এক্ষেত্রে আপনার জন্য আগের পদ্ধতি কার্যকর নয়। আপনাকে ছবি তুলে আয় করার জন্য ছবি বিক্রি করা প্রয়োজন নেই, বিনামুল্যের ব্লগ তৈরী করে সেখানে ছবিগুলি রাখুন। ছবির পরিমান যত বেশি ভিজিটর তত বেশি পাওয়ার সম্ভাবনা। আপনার আয় সরাসরি ছবি থেকে আসবে না, আসবে ভিজিটর থেকে। ব্লগে গুগলের এডসেন্স, ফাষ্ট ২ আর্ন কিংবা এধরনের বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্কের বিজ্ঞাপন রাখুন। ভিজিটর যত বাড়বে আয় তত বাড়বে।

সত্যি বলতে ইন্টারনেটে কেউ আপনাকে টাকা দেবার জন্য বসে নেই; বরং আপনাকে ভিজিটর কিংবা সাবস্ক্রাইবার বানিয়ে তারাই টাকা কামনোর জন্য ওত পেতে আছেন আরকি!
আপনারা এই যে চ্যাম্পক্যাশ, প্লুটো অ্যাপস কিংবা অমুক তমুক ওয়েবসাইট হতে টাকা ইনকাম করার গল্প শুনেন তাদের পেছনের কাহিনী কিন্তু ঐ একই যে ভিজিটর/ভিউয়ার বাড়িয়ে নিজেরা এডভারটাইজমেন্ট রিভিনিউয়ার(যেমন এডসেন্স/এডমোড ইত্যাদি) হতে নিজেরাই টাকা ইনকাম করার জন্য এতোসব আয়োজন!
এই যে শুনেন “ইন্টারনেটে মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করুন” কথাটা আংশিক মিথ্যা কেননা যোগ্যতা এবং পরিপূর্ণ দিকনির্দেশনা ব্যাতীত আউটসোর্সিং করে ১ টি টাকা ইনকাম করাও অসম্ভব. টোটালি ইম্পসিবল!

ইন্টারনেটের জগতে আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডেভোলপিং, ওয়েবসাইট সিকিউরিটি স্পেশালিস্ট, কনটেন্ট রাইটিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, সফটওয়ার ডেভেলপার, সোস্যাল মার্কেটিং যেমন ইমেইল মার্কেটিং ইত্যাদি নানা ভাবে টাকা ইনকাম করতে পারেন। তবে সবার আগে এসব বিষয়ে জ্ঞান অর্জন আর দক্ষতা তৈরীর জন্য আপনাকে নিজকে তৈরী করতে হবে.তাহলেই একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে পারবেন।

আউটসোর্সিং জগতে গুগল এডসেন্স এক অনন্য নাম তাইবলে গুগল এডসেন্স এপ্রুভ হওয়া এবং তা টিকিয়ে রাখাও খুব কঠিন তথাপি এটাই হতে পারে আপনার লাইফটাইম উপার্জনের সেরা উপায়.অতএব একবার ট্রাই করতে দোষ কোথায়?
ডোমেইন হোস্টিং কেনার টাকা না থাকলে আপনি ফ্রিতে ব্লগস্পট হতে একটা ব্লগসাইট খুলে নিতে পারেন; আবার ইউটিউবের জগতে ভিউয়ার দিয়ে টাকা কামানো হতে পারে সহজতম একটা আউটসোর্সিং!
তবে আপনার ব্লগে/ওয়েবসাইটে ভিজিটর পেতে স্পামিং নয় বরং উন্নত এবং ইউনিক কনটেন্ট’ই মাচ এনাফ!

ইন্টারনেটের জগতে সবচেয়ে সহজ একটা উপায় “ফেসবুক” তবে মার্ক জুকারবার্গ আপনাকে টাকা দিতে আসবেনা বরং আপনাকেই ফেসবুক ব্যবহার করে টাকার সন্ধান পেতে হবে।

আপনার একটা ফেমাস ফেসবুক পেইজ হতেও বিভিন্ন এডভারটাইজমেন্ট কিংবা লিংক শেয়ার হতেও টাকা ইনকাম করতে পারেন।

আপনি যদি সত্যিকারের সফল ফ্রিল্যান্সার হতে চান তবে আপনাকে সবার আগে নিজেকে গড়ে তুলতে হবে; আপনি যদি “একদিনে বড়লোক” হতে চান তবে আপনার জন্য ইন্টারনেটে জায়গা নেই আপনি বরং ঘুমিয়ে ঘুমিয়েই স্বপ্ন দেখুন!
ইন্টারনেট আপনাকে “ইয়ে থেকে ইয়াহু” বানাতে পারে যদি আপনার ভেতর (১)জ্ঞান (২)ধৈর্য্য (৩)সময় (৪)শ্রম এবং (৫)সততা থাকে.এইবার কাজে লেগে পড়ুন!

Article Categories:
Online earning

Comments are closed.