Saturday , January 18 2020
Home / মোবাইল / বাসায় বসে ডাচ বাংলা রকেট একাউন্ট দিয়ে ট্রেনের টিকেট কাটুন অনলাইন থেকে

বাসায় বসে ডাচ বাংলা রকেট একাউন্ট দিয়ে ট্রেনের টিকেট কাটুন অনলাইন থেকে

বর্তমানে মোবাইল ও অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কেনা পদ্ধতি চালু হয়েছে। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন না কিভাবে ট্রেনের টিকেট কিনবেন। বাংলাদেশ রেলওয়ের (Bangladesh Railway) সকল ট্রেনের সময়সূচি, রেলওয়ের সফটওয়্যার আপডেটের মাধ্যমে সিট প্ল্যান দেখে টিকেট বুকিং ও কেনার সুবিধা যোগ করেছে। এখন আপনি মোবাইল বা অনলাইনে  বাসা বা অফিস  ইত্যাদি জায়গা থেকে ঘরে বসে সহজে ট্রেনের টিকেট কাটাতে পারবেন।

আগে মোবাইল বা অনলাইনে টিকেট কাটলে কোথায় সিট পাওয়া যাচ্ছে, তা জানার উপায় ছিল না। সিট প্ল্যান দেখে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কেনার সুযোগ করা হয়েছে। এখন ভ্রমণ তারিখের ১০ দিন আগেও টিকেট কেনা যাবে। দেশে প্রচলিত বিভিন্ন ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ও মোবাইল ব্যাংকিং রকেট (ডাচ-বাংলা) দিয়ে এই সেবা পাওয়া যাচ্ছে। তবে এখনও বিক্যাশ ওয়ালেট দিয়ে টিকেট কেনার ব্যবস্থা হয়নি।

ট্রেনের টিকেট কিনতে ‘ই-সেবা’ (https://www.esheba.cnsbd.com/) ঠিকানায় গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে ট্রেনের শিডিউল/ভাড়া দেখা থেকে শুরু করে আপনার যাত্রার দিনে টিকেট আছে কিনা তাও জেনে নিতে পারবেন। সেইসঙ্গে নতুন যুক্ত হওয়া ট্রেনের সিট প্ল্যান দেখে পছন্দের আসনে টিকেট বুকিং/কেনার সুবিধা রয়েছে।

অনলাইনে টিকেট কেনার কিছু ধাপ পেরিয়ে আপনি ক্রেডিট কার্ড ও মোবাইল মানির মাধ্যমে টিকেট প্রাপ্তির ই-মেইল পাবেন। যেখানে আপনার টিকেটের বিস্তারিত ও সিক্রেট পাসওয়ার্ড পৌঁছে যাবে। ভ্রমণের দিনে ট্রেন ছাড়ার ৩০ মিনিট পূর্বে ও আগে বুক করা টিকেট সংগ্রহ করা যাবে। আপনি যদি প্রথমবার টিকেট কাটেন, তাহলে প্রথমে অনলাইন Registration করতে হবে

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কেনার নিয়ম

১। প্রথমে www.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে Registration (শুধুমাত্র একবার করতে হবে) করতে হবে।

২। ওয়েবসাইটে ঢুকে “ডান পার্শ্বের Internal E-services/আভ্যন্তরীণ ই-সেবা হতে Railway E-Ticketing service/রেলওয়ে ই-টিকিট” এর লিংক এ ক্লিক করতে হবে।

৩। Bangladesh Railway এবং CNS Ltd. লেখা ও লোগো সম্বলিত একটি নতুন ওয়েব সাইট খুলে যাবে।

৪। ঢুকলেই একটি পেজে দুটি অপশন, একটি সাইন ইন, অন্যটি সাইন আপ। যাদের আইডি খোলা আছে তারা ই-মেইল, পাসওয়ার্ড, সিকিউরিটি কোড দিয়ে সাইন ইন করে আইডিতে ঢুকবেন। যাদের আইডি খোলা নেই, তারা আইডি খুলতে সাইন আপে ক্লিক করবেন। ওয়েব সাইটটির নীচের দিকে “Sign up” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৫। Create an Account” নামের নতুন একটি Page আসবে। এখানে “Personal Information” ও Extra Information” এর সংশ্লিষ্ট ঘরগুলো প্রয়োজনীয় তথ্যাদি দিয়ে পূরণ করতঃ Security code ঘরের পাশে প্রদর্শিত “Security Code” দিয়ে পূরণ করে Register বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৬। সকল তথ্যাদি সঠিক থাকলে “Registration Successful” নামে নতুন একটি Page আসবে।

৭। ই-টিকেটিং সিস্টেম থেকে তাৎক্ষনিকভাবে আপনার প্রদত্ত ই-মেইল ঠিকানা Bangladesh Railway এর থেকে একটি ই-মেইল পাঠানো হবে।

৮। আপনার ই-মেইল এর মেসেজ বক্সে Bangladesh Railway প্রদত্ত ই-মেইলটি খুলতে হবে। মেসেজের ভিতর রক্ষিত “Click” লিংকটিতে ক্লিক করতে হবে। এ প্রক্রিয়ার পর যাত্রীর Registration প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ হবে।

ক্রয় প্রক্রিয়াঃ ১। প্রথমে www.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে। ২। ওয়েবসাইটে ঢুকে “ডান পাশের central E-service হতে Railway E-Ticketing service” এর লিংক এ ক্লিক করতে হবে। ৩। Bangladesh Railway এবং CNS Ltd. লেখা ও লোগো সম্বলিত একটি নতুন ওয়েব সাইট খুলে যাবে। ৪। “Log in” এর প্যানেল ই-মেইল ঠিকানা, পাসওয়ার্ড এবং সিকিউরিটি কোড পূরণ করতঃ “Log in” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৫। এরপর যে Pageটি আসবে তাতে “Purchase ticket” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৬। এখানে যে Pageটি আসবে সে Page এ আপনার চাহিত ভ্রমণ তারিখ, প্রারম্ভিক স্টেশন, গন্তব্য স্টেশন, ট্রেনের নাম, শ্রেনী, টিকেট সংখ্যা যেভাবে রয়েছে তা পূরণ করতে হবে। এর পরের পেইজে “Registration Seat Available” দ্বারা চাহিত টিকেট এবং এর মূল্যমান জানিয়ে দেয়া হবে। টিকেট থাকলে “Purchase ticket” বাটন ক্লিক করতে হবে।

৭। পেমেন্ট করতে পারবেন ভিসা, মাস্টারকার্ড, অ্যামেরিকান এক্সপ্রেস, ডিবিবিএল নেক্সাস, ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং থেকে। আপনি যেটা দিয়ে ভাড়া দিবেন, সেটাতে ক্লিক করবেন। একবার টিকিট কাটলে আগামী সাতদিন একই কার্ড থেকে টিকিট কাটতে পারবেন না। একাউন্ট মারফত যাত্রির জমাকৃত টাকা থেকে টিকেট মূল্য কেটে নেয়া হবে এবং যাত্রীর ই-মেইলে ই-টিকেটটি পাঠিয়ে টিকেট নিশ্চিত করা হয়ে থাকে।

৮। ই-মেইল মেসেজ বক্স থেকে প্রেরিত টিকেটটির প্রিন্ট নিয়ে ফটো আইডিসহ ই-টিকেট প্রদত্ত “Ticket Print Information” প্রদান করে সংশ্লিষ্ট সোর্স ষ্টেশন থেকে যাত্রার পূর্বে ছাপানো টিকেট সংগ্রহ করতে হবে।

সাইন আউট
টিকিট কাটা হয়ে গেলে কম্পিউটার থেকে এবার সাইন আউট করে ফেলুন। এরপর ই-মেইলে ঢুকলে বাংলাদেশ রেলওয়ে থেকে একটি মেইল আসবে। সাথে একটি পিডিএফ ফাইল থাকবে। এটাই আপনার টিকিটের পিডিএফ। এখানে ডাউনলোড প্রিন্ট আউট অপশন আছে। পছন্দমতো পিডিএফ ডাউনলোড বা প্রিন্ট আউট করুন। যদি কাউন্টার থেকে টিকিটের হার্ডকপি নিতে চান তবে, মোবাইল নম্বর এবং টিকিটের পিন নম্বর একটা কাগজে লিখে কাউন্টারে দিন, তারা আপনাকে টিকিট দেবে।

পিডিএফ টিকিট
যার নামে আইডি খোলা হয়েছে, টিকিটেও তার নামই হবে। যদি সে ভ্রমণ করে, তাহলে শুধু পিডিএফের প্রিন্ট কপি নিয়েই ভ্রমণ করতে পারবে, কাউন্টার থেকে টিকিট তোলা লাগবে না। কিন্তু অন্য কেউ এই পিডিএফ দিয়ে ভ্রমণ করতে পারবে না। এক্ষেত্রে তাকে কাউন্টার থেকে টিকিট তুলতে হবে।

কাটার সময়
টিকিট কেনার সময় সকাল আটটা থেকে রাত দশটা। রাত দশটার পর থেকে টিকেট কাটার ট্রাই করলে ব্যর্থ হবেন।

মোবাইলের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কেনার নিয়মাবলীঃ

মোবাইল ফোন থেকে 1311# ডায়াল করুন। Answer বাটন চেপে যাত্রার তারিখ টাইপ করুন এবং Send প্রেস করুন (আপনার যাত্রার তারিখ 0৫ জানুয়ারি হলে টাইপ করুন 05, ১৫ জানুয়ারি হলে টাইপ করুন 15)। Answer বাটন চেপে আপনার যাত্রা শুরুর স্টেশনের পাশে নম্বরটি টাইপ করে Send প্রেস করুন।

*আপনার গন্তব্য স্টেশনের প্রথম তিনটি অক্ষর টাইপ করুন। আপনার সামনে বেশ কয়েকটি স্টেশনের নাম দেখা যাবে। Answer বাটন চেপে আপনার কাঙিক্ষত স্টেশনের নামের পাশে নম্বরটি দিয়ে Send প্রেস করুন। আপনার ট্রেনটি বেছে নিন (কাঙিক্ষত আন্তঃনগর ট্রেনের পাশে নম্বরটি বসিয়ে Answer বাটন চেপে Send প্রেস করুন)।

টিকেটের ক্লাস বেছে নিন (কাঙিক্ষত ট্রেনের ক্লাসের পাশে নম্বরটি বসিয়ে Answer বাটন চেপে Send প্রেস করুন)। প্রয়োজন অনুযায়ী টিকেট অপশন বেছে নিন (কাঙ্ক্ষিত টিকেট অপশন কম্বিনেশনের পাশে নম্বরটি বসান)। বুকিং কনফার্ম করার জন্য 1 চাপুন (বাতিল করার জন্য 2 চাপুন)। বুকিং কোড ও টিকেটের দামসহ আপনি একটি এসএমএস পাবেন।

বুকিং-এর পরের পদক্ষেপ: যেকোন গ্রামীণফোন সেন্টার বা বিলপে চিহ্নিত আউটলেট থেকে বুকিং দেয়ার ৩০ মিনিটের মধ্যে আপনার মোবিক্যাশ রিফিলে প্রয়োজনীয় পরিমাণ টাকা রিফিল করে নিন।

মনে রাখবেন
অনলাইনে মাত্র ১০% টিকিট দেওয়া হয়। মোবাইলে দেওয়া হয় ১৫%। বাকি ৭৫% টিকিট দেওয়া হয় কাউন্টারে। সিট সিলেকশন দেওয়ার সময় যেসব সিট দেখছেন কালো, সিলেক্ট করা যায় না, সেগুলো কাউন্টারের টিকিট।

Check Also

স্মার্ট ফোন সম্পর্কে কিছু কথা

স্মার্টফোন হল এমন একটি বহনযোগ্য ফোন বা পারসোনাল কম্পিউটার যা মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম দিয়ে চলে …